রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ০৮:২২ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি....
আপনার প্রতিষ্ঠানের বিশ্বব্যাপী প্রচারের জন্য বিজ্ঞাপণ দিন * আপনার চোখে পড়া অথবা জানা খবরগুলোও আমাদের কাছে গুরুত্বর্পূণ তাই সরাসরি জানাতে ই-মেইল করুনঃ ‍simantabarta@gmail.com * আপনার পাঠানো তথ্যর বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব * সারাদেশে জেলা, উপজেলা, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও বিভাগীর পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে * আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন * মোবাইলঃ 01909088904।
সংবাদ শিরোনাম....
ঈদুল ফিতর উপলক্ষে রাজবাড়ী জেলাসহ দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন নুরে আলম সিদ্দিকী হক দৌলতদিয়া বিআইডব্লিউটিসির ফেরির টিকেটের অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ায় ১ কর্মকর্তাকে জরিমানা গোয়ালন্দে দ্বিতীয় বিয়ে করবে বলে ব্লেড দিয়ে স্বামীর গোপনাঙ্গ জখম করলেন স্ত্রী! গোয়ালন্দে উত্তরণ ফাউন্ডেশনের উদ্দ্যোগে পিছিয়ে পড়া তৃতীয় লিঙ্গের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ দৌলতদিয়ায় হেরোইনসহ, গ্রেফতার-৩ গোয়ালন্দ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে যুগান্তর প্রতিনিধির করা মামলায় গ্রেপ্তার-১ রাজবাড়ী প্রশাসনের পক্ষ হতে স্বাস্থ্য সামগ্রী বিতরণ: স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করায় জরিমানা বসন্তপুর মানবিক সংগঠনের উদ্যোগে মাসব্যপী দরিদ্রদের বাড়ী বাড়ী যেয়ে ইফতার পৌছে দেওয়া হচ্ছে বালিয়াকান্দিতে ভোক্তা অধিকারের অভিযানে ৩’শ লিটার টিসিবির তৈল জব্দ ও জরিমানা আদায় গোয়ালন্দে কাজী কেরামত আলী এমপির পক্ষ থেকে ইফতার সামগ্রী বিতরণ
আশুলিয়ার পল্লীবিদ্যুৎ ফুটপাত হকারদের দখলে ভোগান্তিতে পথচারী

আশুলিয়ার পল্লীবিদ্যুৎ ফুটপাত হকারদের দখলে ভোগান্তিতে পথচারী

শামীম হাসান সীমান্ত, নিজস্ব প্রতিবেদক :-

আশুলিয়ার পল্লীবিদ্যুৎ ফুটপাত পথচারীদের নাকি হকারদের তা বোঝা মুশকিল। প্রায় সব ব্যস্ত রাস্তার ফুটপাত এখন হকারদের দখলে। ভ্রাম্যমাণ ও অস্থায়ী হকারদের কারবারে ফুটপাত ধরে হাঁটতে বেগ পেতে হয় পথচারীদের। অর্থাৎ ফুটপাতই এখন যেন পথচারীদের ভোগান্তির কারণ।
এলাকাবাসীর এই ভোগান্তি যেন দেখার কেউই নেই।
অনেক ফুটপাতে যেন স্থায়ীভাবে গেঁড়ে বসেছেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা
আশুলিয়ার ব্যস্ততম এলাকা পল্লীবিদ্যুৎ। বারবার উচ্ছেদ অভিযান সত্ত্বেও ফুটওভার ব্রিজের শুরু থেকে ওপর পর্যন্ত এবং ফুটপাতের পুরোটাই বেশিরভাগ সময় থাকে হকারদের দখলে। কিছু কিছু দোকান রাস্তার ওপরই রীতিমতো ‘স্থায়ী’ রূপ নেয়। বাহারি রকমের ফল, সবজি , কাঁচাবাজার, চায়ের দোকান, স্টেশনারি- এমন কিছু নেই যা এখানে বিক্রি হয় না। এসব দোকানের সামনের ক্রেতাদের ভিড় ঠেলে গন্তব্যে যেতে কয়েকশ মিটার পাড়ি দেয়া কয়েক কিলোমিটারের ভোগান্তির সমান।
শুধু পল্লীবিদ্যুৎ এলাকা নয়, বাইপাইল, সবখানে, সব এলাকার ফুটপাতের প্রায় একই চিত্র। কোনো কোনো জায়গায় দোকানের সঙ্গে ভ্রাম্যমাণ ভিক্ষুকদের উপদ্রবও অতিষ্ঠ করে পথচারীদের। প্রায় প্রতিদিন পল্লীবিদ্যুৎ এলাকায়ই দিনের সূর্য ওঠার সঙ্গে সঙ্গে ফুটপাতগুলো হকার ও ব্যবসায়ীদের দখলে চলে যায়। সকাল ১০টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত তাদের দখলেই থাকে ফুটপাত। পথচারীরা ফুটপাতে ফেরার আগেই আবারও হকারদের দখলেই চলে যায় ফুটপাত।
ফুটপাতের পাশাপাশি অনেক স্থানে রাস্তায়ও বসে গেছেন হকাররা
যেখানে সড়কে দুর্ঘটনার শিকার হতে হয়, সেখানে ফুটপাতেরও যদি এ অবস্থা হয়, তাহলে সেটা কোনোভাবেই মানা যায় না। চলার পথে হকার-ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে ক্রেতাদের যে ভিড়, এর মাঝে চলাচল করা সত্যিই কঠিন। একজন পথচারী হিসেবে চাই, অবশ্যই ফুটপাত দখলমুক্ত করা হোক।’
হকাররা বসায় ফুটপাত ধরে হাঁটতে বেগ পেতে হয় পথচারীদের
মামুন নামের এক পথচারী বলেন, ‘ফুটপাত যে যার মতো করে দখল করেছে। পথচারীদের ভোগান্তি দেখার সময় কারও নেই। ঝুঁকি নিয়েই চলতে হয়। স্থায়ীভাবে কার্যকর পদক্ষেপ না নিলে ফুটপাত কখনোই পথচারীদের ব্যবহার উপযোগী হবে না।’
নবীনগর থেকে আসা এক নারী পথচারী বলেন, ‘ফুটপাত দিয়ে হাঁটার সময় অনেক মানুষের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। আবার কেউ কেউ ইচ্ছা করেই ধাক্কা দেয়। এতে খুবই বিব্রত হই। বিশেষ করে ফুটপাত ব্যবহারে নারী পথচারীদের বিড়ম্বনা খুব বেশি।’
আলতাফ নামের আর একজন বলেন, ‘হঠাৎ অভিযানে ফুটপাত দখলমুক্ত করা হলেও দু-চারদিন পর আবার
ফুটপাতে চলাচল করা যায় না । দু- একটি দোকান উচ্ছেদ করে ‘উচ্ছেদ অভিযান নামক প্রচারণা চালান কর্তৃপক্ষ’। কিন্তু সেই প্রচারণাও হয় জনগণের জন্য আরেক ভোগান্তি। এখন তো আবার ফুটপাতের জায়গা দখল করে রাস্তা বড় করার প্রবণতা দেখা যায়। কিন্তু শুধু রাস্তা বড় করলেই তো হবে না, পথচারীদের চলাচলের জন্যও জায়গা রাখতে হবে।

সংবাদ টি শেয়ার করুন




©2019 Daily Shimanta Barta. All rights reserved.
Design BY PopularHostBD