রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ০২:১০ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি....
আপনার প্রতিষ্ঠানের বিশ্বব্যাপী প্রচারের জন্য বিজ্ঞাপণ দিন * আপনার চোখে পড়া অথবা জানা খবরগুলোও আমাদের কাছে গুরুত্বর্পূণ তাই সরাসরি জানাতে ই-মেইল করুনঃ ‍simantabarta@gmail.com * আপনার পাঠানো তথ্যর বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব * সারাদেশে জেলা, উপজেলা, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও বিভাগীর পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে * আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন * মোবাইলঃ 01909088904।
আশুলিয়ায় তেঁতুল গাছের নিচে সন্ত্রাসীদের টর্চার সেল

আশুলিয়ায় তেঁতুল গাছের নিচে সন্ত্রাসীদের টর্চার সেল

সীমান্ত বার্তা ,নিউজ ডেস্ক :

সাভারের আশুলিয়ার শ্রীপুর এলাকায় খান কলোনি রোডে খালেকের বাড়ির পিছনে রয়েছে একটি তেঁতুল গাছ। তেঁতুল গাছ কে ঘিরে রয়েছে এলাকাবাসীর অনেক অভিযোগ। এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায় দীর্ঘদিন ধরে একটি সন্ত্রাসী চক্র তেঁতুল গাছের নিচে তাদের বিভিন্ন অসামাজিক কার্যক্রম চালিয়ে যায়।  মাদক থেকে শুরু করে বিভিন্ন সময়ে সাধারণ মানুষকে মারধর করা সহ কোনো অপকর্ম বাদ যায় না এসকল সন্ত্রাসীদের হাত থেকে।ইতিপূর্বেও বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় এসকল সন্ত্রাসীদের নামে বিভিন্ন খবর ছাপা হয়েছে। ধর্ষণ থেকে শুরু করে সন্ত্রাসী চাঁদাবাজি জায়গা দখল নারী কেলেঙ্কারি জমির দালালি জমি দখল সহ সকল অপকর্মে জড়িত এই গেদু বাহিনী।এই বাহিনীর নেতৃত্বে রয়েছে মোহাম্মদ আব্দুল আলিম ওরফে গেদু রাজ, যুবরাজ, দুধরাজ পিতা মৃত তাহের মন্ডল, মোহাম্মদ কাউসার, মোহাম্মদ ফিরোজ ও মোহাম্মদ মেহেদী স্বর্গ পিতা মোঃ আব্দুল আলিম ওরফে ,যুবরাজ, দুধরাজ। তাদের নামে আশুলিয়া ও কাশেমপুর থানায় একাধিক মামলা রয়েছে তারপরেও তারা তাদের এই অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে। তাদের ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পায়না এলাকাবাসী। কিছুদিন আগে এলাকাবাসী মিলে তাদের এই সন্ত্রাসীমূলক কার্যক্রম বন্ধ করার জন্য একত্রিত হয়ে একটি মানববন্ধন করে এতে করেও কোনো সুফল পায়নি এলাকাবাসী। এছাড়াও ডিস ব্যবসা থেকে শুরু করে ময়লা ফালানো্সহ প্রত্যেকটা জায়গায় রয়েছে এই গেদু বাহিনীর হাত। প্রশাসনের নাকের ডগায় বসে তারা তাদের সন্ত্রাসীমূলক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে যেকোনো ব্যবসা করতে গেলে চাঁদা দিতে হয় গেদু বাহিনীকে। একাধিক সূত্রে জানা যায় বিভিন্ন এলাকা থেকে অনেক সন্ত্রাসী এসে প্রশ্রয় পায় গেদু বাহিনীর কাছে।কিছুদিন আগে মিজানুর রহমান নামে একজন গার্মেন্টস লাইন চিপের কাছে চাঁদা দাবি করে তারা তিনি চাঁদা দিতে রাজি না হলে তাকে বেধড়ক পিটিয়ে রক্তাক্ত করে রেখে যায় । তিন মাস ধরে বিছানায় পড়ে থাকেন তিনি সর্বশেষ অতিষ্ঠ হয়ে জায়গা বিক্রী করে তার গ্রামের বাড়ি বরিশালে চলে যান তিনি ।এলাকাবাসীর কাছে এক আতঙ্কের নাম গেদু বাহিনী। এই গেদু বাহিনীর হাত থেকে এলাকাবাসী মুক্তি চায় এবং প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

সংবাদ টি শেয়ার করুন




©2019 Daily Shimanta Barta. All rights reserved.
Design BY PopularHostBD