রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ০২:১৩ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি....
আপনার প্রতিষ্ঠানের বিশ্বব্যাপী প্রচারের জন্য বিজ্ঞাপণ দিন * আপনার চোখে পড়া অথবা জানা খবরগুলোও আমাদের কাছে গুরুত্বর্পূণ তাই সরাসরি জানাতে ই-মেইল করুনঃ ‍simantabarta@gmail.com * আপনার পাঠানো তথ্যর বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব * সারাদেশে জেলা, উপজেলা, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও বিভাগীর পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে * আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন * মোবাইলঃ 01909088904।
আশুলিয়ায় প্রতারক খোরশেদ নিজেকে কাজী পরিচয় দিয়ে সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণা করছেন

আশুলিয়ায় প্রতারক খোরশেদ নিজেকে কাজী পরিচয় দিয়ে সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণা করছেন

সীমান্ত বার্তা, অনলাইন ডেস্ক :-

প্রাতিষ্ঠানিক কোনো শিক্ষা তার নেই। তবু তিনি ‘কাজী সাহেব’। বর-কনের বয়স কম কিন্তু বিয়ে দিতে বা করাতে হবে এমন বিয়ে নিবন্ধন করা তার জন্য মামুলি ব্যাপার। এলাকা ছাড়াও দেশের বিভিন্ন স্থানে তিনি অবাধেই বিচরণ করেন। প্রতিনিয়তই বাল্য বিয়ে পড়াচ্ছেন।কথিত কাজি খোরশেদ (৪৫) আশুলিয়া থানার ধামসোনা ইউনিয়নের ডেন্ডাবর কাঠালবাগান এলাকায় তার বাসা। স্থানীয়রা জানান, কাজী খোরশেদ নিজেকে অনেক বড় কাজী বলে দাবি করেন। প্রাতিষ্ঠিনিক কোনো শিক্ষা নেই। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আওয়াল কাজীর নিকাহ নিবন্ধক বই নিয়ে তিনি বিয়ে রেজিস্ট্রির কাজ করতেন গত প্রায় ৬ মাস আগে আওয়াল কাজী খোরশেদকে তার অফিস থেকে বের করে দেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়াল কাজী বলেন খোরশেদ আগে আমার সহকারি ছিল, যখন আমি জানতে পারলাম খোরশেদ মানুষের থেকে মিথ্যা কথা বলে টাকা নিয়ে বাল্যবিবাহ সহ অনেক অবৈধ কাজে জড়িত ঠিক তখনি আমি তাকে আমার কাছ থেকে বের করে দেই। আবার আমি শুনলাম রাস্তার আশপাশে অনেকগুলো সাইনবোর্ড ঝুলানো রয়েছে সাইনবোর্ডে আমার অফিসের ঠিকানা দেওয়া অথচ নাম্বার দেওয়া খোরশেদের আবার অনেকেই অভিযোগ করেন খোরশেদ আমার নাম ভাঙিয়ে মানুষকে হয়রানি করছে রেজিস্টার বিয়ের কথা বলে কোর্ট ম্যারেজ এর মাধ্যমে মানুষের সাথে প্রতারণা করছে আমি এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। আমি চাই খোরশেদ এর মত কাজী না হয়ে কেউ যেন নিজেকে কাজী বলে পরিচয় না দেন। পল্লী বিদ্যুৎ, ডেন্ডাবর ,কাঠালবাগান, নিরিবিলি ,নবীনগর সহ আশপাশে মানুষ কে রেজিস্টার বিয়ের কথা বলে কোর্ট ম্যারেজ করে দেওয়াই হচ্ছে প্রতারক খোরশেদ এর কাজ। এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রতারক খোরশেদ বলেন আমি মানুষের উপকার করি আমি আওয়াল কাজীর লোক এক পর্যায়ে যখন বলা হয় আওয়াল কাজি তার অফিস থেকে আপনাকে বের করে দিছে তখন তিনি আর সঠিক উত্তর দিতে পারেন নাই।আশপাশ যত বাল্যবিয়ে হচ্ছে তার বেশিরভাগ হচ্ছে তার হাত দিয়ে। বিশেষ উপায়ে জন্ম নিবন্ধন তৈরি করে এই বিয়েগুলি পড়ান অত্যন্ত গোপনে। রাস্তার মোড়ে মোড়ে রয়েছে খোরশেদ এর সাইনবোর্ড কেউ যদি ফোন করে বিয়ের কথা বলেন তিনি তার বাসার ঠিকানা দিয়ে দেন অত্যন্ত গোপনে বাসায় বসে বিয়ের কাজ করেন । তার কাছে বই না থাকা সত্ত্বেও কীভাবে তিনি বিয়ে পড়ান। এখনই সময় এ সকল ভন্ড প্রতারক নামধারী কাজীর হাত থেকে সমাজকে রক্ষা করার।

সংবাদ টি শেয়ার করুন




©2019 Daily Shimanta Barta. All rights reserved.
Design BY PopularHostBD