রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ০২:১২ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি....
আপনার প্রতিষ্ঠানের বিশ্বব্যাপী প্রচারের জন্য বিজ্ঞাপণ দিন * আপনার চোখে পড়া অথবা জানা খবরগুলোও আমাদের কাছে গুরুত্বর্পূণ তাই সরাসরি জানাতে ই-মেইল করুনঃ ‍simantabarta@gmail.com * আপনার পাঠানো তথ্যর বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব * সারাদেশে জেলা, উপজেলা, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও বিভাগীর পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে * আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন * মোবাইলঃ 01909088904।
বাইডেনকে হোয়াইট হাউসে ঢুকতে দিচ্ছে না ট্রাম্প!

বাইডেনকে হোয়াইট হাউসে ঢুকতে দিচ্ছে না ট্রাম্প!

বাইডেন নাকি ট্রাম্প? কার দখলে হোয়াইট হাউস? ৪৮ ঘণ্টা পেরিয়ে এসেও জবাব অধরা। গণনা যখন পঞ্চম দিনে পড়ল, তখনও চলছে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। সর্বশেষ পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, এখনও পর্যন্ত পেনসিলভ্যানিয়ায় ২৮,৮৭৭ভোট পেয়ে এগিয়ে রয়েছেন জো বাইডেন। আইনি বাধাকে তোয়াক্কা না করেই বাইডেন জোর গলায় দাবি করেন, প্রেসিডেন্ট হচ্ছেন তিনিই। প্রেসিডেন্ট পদ গ্রহণ করার পর তিনি কোন কোন কাজকে বেশি অগ্রাধিকার দেবেন, সে ব্যাপারে একটি ঘোষণা করেছেন আত্মবিশ্বাসী বাইডেন। বিশ্বের সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত দেশ, আমেরিকায় করোনা পরিস্থিতি সামাল দেওয়াকেই তিনি তালিকার প্রথমে রেখেছেন। পাশাপাশি কঠিন পরিস্থিতিতে অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে, বর্ণ-বৈষম্য দূর করতে তিনি বেশি জোর দেবেন বলে জানান।

অন্যদিকে বাইডেনের জয় আসন্ন দেখে ডোনাল্ড ট্রাম্প অভিযোগ করেছেন যে রাজ্যে তিনি এগিয়ে রয়েছেন, সেখানে কারচুপির কারণে রহস্যজনকভাবে পিছিয়ে পডেছেন। ফলে আবারও আইনি পদক্ষেপ নিয়ে হোয়াইট হাউস আগলে রাখার শেষ চেষ্টা করে চলেছেন ট্রাম্প।অন্যদিকে, আটলান্টিকের ও পার থেকে কটাক্ষ ধেয়ে এল ট্রাম্পের দিকে। তবে কোনও ভারিক্কি রাজনৈতিক নেতা নন, রিপাবলিকানদের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীকে বিঁধলেন গ্রেটা থুনবার্গ। ট্রাম্পের সাম্প্রতিক কীর্তিকলাপ দেখে টুইটারে গ্রেটার ব্যঙ্গোক্তি, ‘চিল, ডোনাল্ড চিল!’ গত বছর গ্রেটাকে হুবহু এক ভাবে বিদ্রুপ করেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। সুযোগ বুঝে বৃহস্পতিবার সন্ধেয় তারই পাল্টা গ্রেটার।

অ্যাডভান্টেজ বাইডেন হয়ে থাকলেও, ডেমোক্র্যাট প্রার্থী এবং তার জয়ের মধ্যে প্রাচীর হয়ে দাঁড়িয়ে আছে ৬টি সুইং স্টেট। হোয়াইট হাউস দখলের আসল লড়াই এখন সেখানেই চলছে। বিশেষ করে জর্জিয়া বা পেনসিলভ্যানিয়ার মতো স্টেট, যেখানে জয়-পরাজয় কার্যত সুতোর ওপর ঝুলছে। জোরদার লড়াই চলছে নেভাডাতেও। অ্যারিজোনা ও জর্জিয়াতেও এগিয়ে ডেমোক্র্যাটরা। নেভাডায় ২০,১৩৭ ভোটে এগিয়ে বাইডেন। অ্যারিজোনাতেও তিনি লিড নিয়েছেন ৪৩,৭৭৯ ভোটে। জর্জিয়াতেও ১,১৫৩ ভোটে এগিয়ে তিনি এই চার রাজ্যের একটিতে জয় পেলেই ম্যাজিক ফিগার ২৭০ ছুঁয়ে ফেলবেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী।তবে শেষ রাতে ওস্তাদের মার দিয়ে জয় ছিনিয়ে নিতে পারেন ট্রাম্পও। তবে তার সম্ভবনা ক্রমশই কমছে। ঘোষিত রাজ্যগুলির নিরিখে এখন ফল বাইডেন ২৬৪, ট্রাম্প ২১৪।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন ঘিরে এই মুহূর্তে চরম উত্তেজনা চলছে। শেষ ছয়টি অহ্গরাজ্যে ভোটগণনা শেষ হওয়া বাকি হলেও হিসাব নিকাশের পালা প্রা. শেষের পথে। আলাস্কা ও নর্থ ক্যারোলাইনায় ট্রাম্প এগিয়ে থাকলে সাদা বাড়ির লড়াই অনেকটাই এগিয়ে বাইডেন। ওয়েস্ট উইংয়ের কুর্সি যে ট্রাম্পের থেকে ক্রমেই দূরে সরে যাচ্ছে, তার আরও বড় প্রমাণ গত কয়েক দিনে সিক্রেট সার্ভিসের গতিবিধি। প্রেসিডেন্টের নিরাপত্তার দায়িত্ব থাকে ক্ষিপ্র এই বাহিনীর হাতে। বৃহস্পতিবার থেকেই বাইডেনের নিরাপত্তা বাড়িয়ে দিয়েছে তারা।বাইডেন বা ট্রাম্প, ক্ষমতায় যেই আসুন না কেন, করোনার প্রকোপে ধ্বস্ত মার্কিন অর্থনীতিকে সামলানো বড়সড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াবে তার কাছে। আমেরিকায় মন্দা চরমে। চাকরির বাজারের অবস্থাও তথৈবচ। করোনায় এমনিতেই মার্কিন ক্রেতাদের ক্রয়ক্ষমতা অনেকটা কমেছে। তাই অর্থনীতি চাঙা না-হলে ক্রেতাদের ক্রয়ক্ষমতা বাড়বে না। এর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে বাড়ির দাম। ফলে তীব্র সমস্যায় পড়েছেন বাড়ির সম্ভাব্য ক্রেতা এবং ভাড়াটেরা। এর উপর রয়েছে করোনার প্রকোপ।

গত সপ্তাহেও আমেরিকায় ৬০০০ জনের মৃত্যু হয়েছে কোভিডে। যে দিন গণনা নিয়ে যুদ্ধ রাতভর চলেছে, সেদিনও দেশে লক্ষাধিক মানুষ কোভিড পজিটিভ হয়েছেন। এই অবস্থায় দাবি উঠেছে, ইউরোপের অন্য দেশগুলির মতো আমেরিকাতেও ফের লকডাউন করা হোক। তাই কাঁটা বিছোনো পথই অপেক্ষা করছে হবু মার্কিন প্রেসিডেন্টের জন্য।বাইডেন অবশ্য এরই মধ্যে এক বিরল নজির গড়ে ফেলেছেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ইতিহাসে সর্বকালের সবচেয়ে বেশি ‘পপুলার ভোট’ তার দখলে। আগে এই রেকর্ড ছিল বারাক ওবামার। ২০০৮ সালে ওবামা পেয়েছিলেন ৬ কোটি ৯০ লক্ষের কিছু বেশি ভোট। বাইডেন ইতিমধ্যেই মোট ৭ কোটির অনেক বেশি ভোট দখল করেছেন। এখনও গণনা বাকি। ট্রাম্পও অবশ্য এ বার আগের চেয়ে বেশি ভোট পয়েছেন। তিনিও ওবামার রেকর্ড ভাঙার কাছাকাছি। এখনও পর্যন্ত যা খবর, তাতে প্রেসিডেন্ট পেয়েছেন ৬ কোটি ৭৩ লক্ষের বেশি ভোট।

মার্কিন ভোটের ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা যাচ্ছে, বাইডেন এখনও পর্যন্ত জিতেছেন উইসকনসিন, মিশিগান, নিউ মেক্সিকো, নিউ হ্যাম্পশায়ার, নিউ ইয়র্ক, ম্যাসাচুসেটস, নিউ জার্সি, মেরিল্যান্ড, ভারমন্ট, কানেক্টিকাট, ডেলাওয়ার ও কলোরাডোতে। হাওয়াই, ওয়াশিংটন, ক্যালিফোর্নিয়া এবং ইলিনয়ের মতো রাজ্যেও জয় পেয়েছে ডেমোক্র্যাটরা। প্রতিপক্ষ রিপাবলিকানরা জিতেছেন সাউথ ক্যারোলাইনা, আলাবামা, নর্থ ডাকোটা, আরকানসা, টেনিসি, ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া, ওকলাহোমা, কেন্টাকি ও ইন্ডিয়ানাতে। আইওয়ার ৩টি ইলেক্টরাল ভোটও গিয়েছে ট্রাম্পের পক্ষে। সূত্র: এই সময়।

সংবাদ টি শেয়ার করুন




©2019 Daily Shimanta Barta. All rights reserved.
Design BY PopularHostBD